Video Message from Bangladesh to COP-22

During UNFCCC's 22nd Conference of Parties (COP-22) in Marrakesh, Morocco, Coastal Livelihood and Environmental Action Network (CLEAN) along with Oxfam in Bangladesh and Campaign for Sustainable Rural Livelihoods (CSRL) organized a video message campaign to the COP-22 leaders demanding Climate Justice for women farmers and the most vulnerable countries like Bangladesh. Here are some of the video messages.

1. Member of Parliament Alhajj Mizanur Rahman Mizan
Member of Parliament from Khulna-2 constituency Alhajj Mizanur Rahman Mizan said, as the people of coastal Bangladesh are the most severe victims of climate change, we are entitled to receive only compensation from the developed countries, not loan. Our prime minister raised the issues in UN and Bangladesh Parliament several times. We want to build resilience of the vulnerable people by using those reparation funds. He also demanded not to include loan providing institutions in climate finance.

2. Environmental Economist Professor Anowarul Quadir





‘বাঘ’ নিয়ে সুন্দরবন রক্ষার দাবি খুলনায়

দৈনিক প্রথম আলো
খুলনা অফিস | ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৬

দুই পাশে দুই শাবক নিয়ে মা বাঘ বসে আছে। পেছনে ব্যানারে লেখা ‘তোমাদের বিদ্যুতের জন্য আমাদের আবাস ধ্বংস করো না’।

গতকাল বৃহস্পতিবার খুলনা শহরের শহীদ হাদিস পার্কে বাঘের তিনটি প্রতিকৃতি নিয়ে অভিনব এক প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করেছে কয়েকটি সংগঠন। সুন্দরবনের পাশে বিদ্যুৎকেন্দ্রসহ দূষণকারী শিল্পকারখানা বন্ধের দাবিতে এ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। উপকূলীয় জীবনযাত্রা ও পরিবেশ কর্ম জোট (ক্লিন), ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) ও সচেতন নাগরিক কমিটির (সনাক) যৌথ উদ্যোগে এ প্রতিবাদ কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন ক্লিন-টিআইবি-সনাক ওয়ার্কিং গ্রুপের আহ্বায়ক কুদরত-ই-খুদা। পরিচালনা করেন ক্লিনের প্রধান নির্বাহী হাসান মেহেদী।

প্রতিবাদ কর্মসূচিতে বক্তারা বলেন, সুন্দরবন-সংলগ্ন এলাকাগুলোতে একের পর এক শিল্পকারখানা গড়ে উঠছে। প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকার পাশেই রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র ছাড়াও ওরিয়ন বিদ্যুৎকেন্দ্র, সিমেন্ট ফ্যাক্টরি, এলপিজি প্ল্যান্ট, খাদ্যগুদামসহ প্রায় দেড় শ শিল্পপ্রতিষ্ঠান সুন্দরবনের অস্তিত্বকেই হুমকির মুখে ঠেলে দিয়েছে। সুন্দরবনের প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকাসহ (ইসিএ) সংলগ্ন ভূমিতে দেড় শতাধিক শিল্পপ্রতিষ্ঠান নির্মিত হয়েছে বা হতে যাচ্ছে।


লিংক : http://m.prothom-alo.com/bangladesh/article/965305/%E2%80%98%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%98%E2%80%99-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A6%B8%E0%A7%81%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A6%E0%A6%B0%E0%A6%AC%E0%A6%A8-%E0%A6%B0%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B7%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%A6%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A6%BF-%E0%A6%96%E0%A7%81%E0%A6%B2%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A7%9F